ঠান্ডা না গরম, স্বাস্থ্যের জন্য কোন অবস্থায় দুধ বেশি উপকারী? জানুন…

এই সময় জীবনযাপন ডেস্ক: দুধ খেতে আপনার ভালো নাই লাগতে পারে, তা বলে দুধের উপকারিতা তো আপনি অস্বীকার করতে পারবেন না। দুধ (milk) আমাদের শরীরের জন্য সবচেয়ে উপকারী খাবারগুলোর একটি। অফিস-কাছারি, স্কুল-কলেজে যাদের রোজকার যাতায়াত সকাল সকাল এক গ্লাস দুধ দিয়েই তাঁদের দিন শুরু হয় অধিকাংশ ক্ষেত্রে। এক গ্লাস করে লো-ফ্যাট দুধ খেলে শরীরের কোলেস্ট্রল লেভেল অনেকটাই কমে এবং শরীর সুস্থ থাকে। দুধে (milk) যে প্রোটিন থাকে তা খারাপ কোলেস্টেরল কমিয়ে ভালো কোলেস্টেরল মাত্রা বৃদ্ধি করে। প্রতিদিন এক গ্লাস করে দুধ (milk) সকলেরই খাওয়া উচিত। দুধ কেউ গরম খেতে ভালোবাসে, আবার কারোর পছন্দ ঠাণ্ডা দুধ। স্বাস্থ্যের জন্য গরম না

প্যাকেটের যে দুধ (milk) আমরা সাধারণত দোকান থেকে কিনে খাই তা পাস্তপরাইজ করার জন্য নানা রাসায়নিক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যায়। এই দুধ গরম করেই খেতে হয়। তবে টেট্রা প্যাকের দুধ ঠান্ডা অবস্থাতেও খাওয়া যেতে পারে। কারণ এই দুধ অতটা রাসায়নিক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে না যাওয়ায় এর মধ্যের পুষ্টিগুণ বেশি মাত্রায় বজায় থাকে। তবে খেয়াল রাখবেন ঠান্ডা দুধ শুধুমাত্র সকালেই খাওয়া যেতে পারে। রাতে ঠান্ডা দুধ খেলে তা আমাদের হজমে ব্যাঘাত ঘটায়।

ঠান্ডা দুধ খাওয়ার আরও একটি সুফল হল এটি ওজন কমাতে সাহায্য করে। ঠান্ডা দুধের মধ্যে থাকা ক্যালসিয়াম আপনার মেটাবলিজম রেটকে বাড়িয়ে দেয়। ফলে বেশি ক্যালোরি বার্ন হয়। তবে শীতকাল এবং ঋতু পরিবর্তনের সময় ঠান্ডা দুধ না খাওয়াই ভালো। এই ঠান্ডা দুধ খেলে সর্দি-কাশি হতে পারে। অনিদ্রা সমস্যা থাকলে অবশ্য ঠান্ডা নয়, গরম দুধ খান।

ঠাণ্ডা দুধ স্থূলতা কমায়। আর ভালো ঘুম বা হজমশক্তি বাড়াতে গরম দুধের প্রয়োজন। কোনটা আপনার জন্য উপকারী, সেটি আপনি ভালো বুঝবেন। দুধ থেকে তৈরি খাবার যাদের হজম হয় না, তাদের খেতে হবে গরম দুধ। ঠাণ্ডা দুধ তুলনায় ভারী। হজম করা কষ্ট। আর গরম দুধে ল্যাক্টোজের পরিমাণ কম থাকে। তাই এই দুধ সহজে হজম হয়

About Mokaddes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *