বাংলাদেশ ক্রিকেটের অভিশপ্ত ৩৬৫ দিন

দেখতে দেখতে শেষ হয়ে গেলো বাংলাদেশ ক্রিকেটের অভিশপ্ত ৩৬৫ দিন। এক বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে বৃহস্পতিবার থেকে আবার আনুষ্ঠানিকভাবে সব ধরনের ক্রিকেট কার্যক্রম শুরু করতে পারবেন বাংলাদেশের এই অলরাউন্ডার। ঠিক এক বছর আগের এ দিনেই, টাইগার ক্রিকেট আকাশে নেমে আসে রাজ্যের অন্ধকার। নিষিদ্ধ হন মিস্টার সেভেন্টি ফাইভ। কেমন ছিলো সে দিনটা কিংবা এ পুরো সময়টা?

সাকিব আল হাসান, নামেই যার পরিচয়। যার কোন বিশেষণের প্রয়োজন হয় না। টাইগার ক্রিকেটের বরপুত্র। ইতিহাসের সেরা বললেও হয়তো বাড়াবাড়ি হবে না। কিন্তু সেরারা মনে হয় একটু আলাদাই হন। আর সবার মতো নিয়ম কানুন কিংবা আইনের মারপ্যাঁচে বাধা যায় না তাদের। তাই তো ক্রিকেটীয় কারণে যতবার শিরোনাম হয়েছেন সাকিব, ততবার না হলেও বেশ অনেকবারই নেতিবাচক কারণে সংবাদ হয়েছেন তিনি।

তবে, সব কিছু ছাপিয়ে যায় ২০১৯ এর অক্টোবরের সেই দিনটা। গভীর রাতে একটি পত্রিকার পাতায় শোকাচ্ছন্ন কালো কালিতে শিরোনাম হয়- ১৮ মাস নিষিদ্ধ হচ্ছেন সাকিব। হৈ চৈ পড়ে যায় পুরো ক্রীড়াঙ্গনে। রাত পোহাতেই একটা নিউজের সন্ধানে ক্রিকেট বোর্ড, বিসিবি সভাপতি এবং সাকিবের বাসার সামনে ভিড় করেন সাংবাদিক এবং সমর্থকরা।

কিন্তু মুখে কুলুপ এঁটে রাখেন সাকিব আল হাসান। একই অবস্থা ছিলো বিসিবি বসেরও। পরে, দিনভর অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে সন্ধ্যায় মলিন চেহারায় ক্রিকেট বোর্ডে আসেন সাকিব। আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়, ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়েও তা আকসুকে না জানানোয় এক বছরের নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে সাকিব আল হাসানকে। ক্ষোভে ফেটে পড়েন সমর্থকরা।

এরপর নিষেধাজ্ঞার খড়্গ মাথায় নিয়ে দেশ ছেড়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান তিনি। কিন্তু আকাশসম জনপ্রিয়তা যার, তিনি কি আর অলস সময় কাটাতে পারেন। করোনায় আক্রান্ত দেশের মানুষের জন্য সামনে নিয়ে আসেন নিজের ফাউন্ডেশনকে। সাত সমুদ্র দূরত্বে বসে থেকেও সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন সাধারণ মানুষের জন্য।

এর মধ্যেই দ্বিতীয়বারের মতো বাবা হন সাকিব আল হাসান। দুই মেয়ে আর স্ত্রীকে নিয়ে কাটতে থাকে তার নিষেধাজ্ঞার সময়কাল। করোনার মধ্যেই শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার তোড়জোড় শুরু করে বিসিবি। আবারো দেশের ডাকে বাংলাদেশে ফিরে আসেন মিস্টার সেভেন্টি ফাইভ। বিকেএসপিতে শৈশবের গুরুদের হাত ধরে চলে তার ফিরে আসার লড়াই। লোকালয় থেকে দূরে নিজেকে গুছিয়ে নিতে শুরু করেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

কিন্তু, করোনায় শ্রীলঙ্কা সফর বাতিল হয়ে গেলে আবারো পরিবারের কাছে ফিরে যান সাকিব। এখনো সেখানেই আছেন তিনি। আসন্ন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ দিয়ে আবারো মাঠে ফিরতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের জান, বাংলাদেশের প্রাণ-সাকিব আল হাসান।

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *