Breaking News

জেনে নিন সাপ নিয়ে প্রচলিত যত কুসংস্কার

সাপ নিয়ে নানা ধরণের গল্প, আপাতদৃষ্টিতে অদ্ভূত ধারণা, কুসংস্কার বা কিংবদন্তীর যেরকম অভাব নেই ভারতীয় উপমহাদেশের দেশগুলোয়, তেমনি সাপ সম্পর্কে মানুষের আগ্রহেরও অভাব নেই এই অঞ্চলের মানুষের মধ্যে। শুধু এই অঞ্চলই নয়, বিশ্বের যে কোনো অঞ্চলের বন জঙ্গলে পরিপূর্ণ এলাকা, আদিবাসী অধ্যূষিত অঞ্চল, পাহাড়ি জনপদ, নদী বা জলাশয়ের আশেপাশে থাকা জনবসতির মানুষের কাছে খুব পরিচিত প্রাণী সাপ।

সরীসৃপ এই প্রাণীর কামড়ে বিশ্বে প্রতিবছর প্রায় এক লাখ মানুষের মৃত্যু হলেও প্রাণী হিসেবে সাপ কিন্তু আগ্রাসী বা ভীতিকর প্রাণী নয়। সাপ সাধারণত নিজে থেকে এগিয়ে এসে মানুষকে আক্রমণ করে না। হুমকির মুখে পড়লে, হঠাৎ চমকে গেলে বা কোনঠাসা হয়ে গেলে সাপ আক্রমণ করে থাকে।

সাধারণত গ্রামাঞ্চলে, কৃষি সংশ্লিষ্ট এলাকায়, জঙ্গল বা পাহাড়ি অঞ্চলের জনবসতিতে সাপে কাটার ঘটনা বেশি ঘটে থাকে। তবে যুগ যুগ ধরে এই অঞ্চলের কৃষিপ্রধান গ্রামীণ সমাজের মানুষের সাথে সাপের পরিচয় থাকলেও এখানকার মানুষের মধ্যে এখনও সাপকে কেন্দ্র করে নানান ভুল ধারণা বা কুসংস্কার কেন রয়েছে, সেই প্রশ্ন উঠতেই পারে।

সাপ নিয়ে প্রচলিত যত কুসংস্কার: সাপ নিয়ে নানারকম ভুল বা অবৈজ্ঞানিক ধারণা আমাদের লোকসমাজে প্রচলিত রয়েছে। সেগুলোর মধ্যে কয়েকটি হল:

সাপ দুধ খায়: দুধ হজম করতে যেই উপাদানটি প্রয়োজন হয়, সাপের পাকস্থলিতে সাধারণত সেই উপাদানটিই কখনো তৈরি হয় না। অর্থাৎ সাপ কখনও দুধ হজমই করতে পারে না। অনেক সাপের ক্ষেত্রেই দুধ বিষের মত কাজ করে। কিছু সাপ দুধ খাওয়ার সাথে সাথে মারাও যায়। তবে সাপের খেলা দেখায় যারা, তাদের কাছে সাপ দুধ খাচ্ছে, এই দৃশ্য আপনি দেখেও থাকতে পারেন।

সাপকে দীর্ঘদিন পানি না পান করানোর পর যে কোনো ধরণের তরল পদার্থ পান করতে দিলে তারা সেটাই পান করে। সাপকে দুধ খাওয়ানোর জন্য সাধারণত এই পদ্ধতিই অবলম্বন করে সাপের খেলা দেখানো ব্যক্তিরা।

সঙ্গীকে হত্যা করলে সাপ প্রতিশোধ নেয়: সাপের সাধারণত কোনো ধরণের সামাজিক বা পারিবারিক বন্ধন থাকে না। এমনকি আলাদাভাবে কোনো হত্যাকারীকে চেনার মত স্মৃতিও থাকে না সাপের। অর্থাৎ অন্য একটি সাপের মৃত্যুর গুরুত্ব একটি সাপ আলাদা করে বুঝতে পারে না। আর মানুষ সাপের স্বাভাবিক খাদ্য না হওয়ায় মানুষকে হত্যা করার জন্য সাপ কখনো আলাদাভাবে আক্রমণ করে না।

সাপুড়ের বাঁশি বা বীণের শব্দে সাপ নাচে: সাপের খেলা দেখানো কোনো ব্যক্তির-যারা এই অঞ্চলে সাপুড়ে হিসেবে পরিচিত, হাতে থাকা লম্বা বাঁশি বা বীণের সুরের তালে তালে সাপ দেহ দোলাচ্ছে. এমন দৃশ্য বাংলা বা হিন্দি সিনেমার পাশাপাশি বাস্তব জীবনেও কেউ কেউ দেখে থাকতে পারেন। তবে এখানে জেনে রাখা ভালো যে সাপটি কিন্তু বাঁশি বা বীণার সুর শুনে দেহ দোলাচ্ছিল না।

অনেকসময় সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে, সাপ তার জন্য হুমকি হতে পারে এমন কোনো বস্তুর নাড়াচাড়া অনুসরণ করে। তাই সাপুড়ের লম্বা বীণা বা বাঁশি সাপের খুব কাছে নাড়াচাড়া করা হলে সাপ ঐ বস্তুটির নাড়াচাড়া অনুসরণ করতে থাকে।

আর দেহের বাইরে সাপের কান না থাকায় তারা খুব একটা ভালোভাবে শুনতে পায় না। কিন্তু মাটিতে হওয়া কম্পন খুব ভালো বুঝতে পারে। সাপুড়েরাও সাধারণত ঐ মূলনীতি অনুসরণ করে সাপের মনোযোগ আকর্ষণ করার জন্য ক্রমাগত মাটিতে পা দিয়ে কম্পন তৈরি করতে থাকে।

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *