Breaking News

চোখের পাতা ঘন করার তিনটি ঘরোয়া উপায়

চোখের পাতা ঘন করার জন্য মহিলারা নানা প্রোডাক্টই ব্যবহার করে থাকেন৷ চোখের পাতাকে হাইলাইট করতে গিয়ে, কার্ল করতে গিয়ে আইশ্যাডো, মাস্কারা এসবের সাহায্য নিতে হয়৷ আর এতো কিছু ব্যবহার করতে করতে বারোটা বেজে যায় চোখের৷ এগুলি ব্যবহারের পর চোখের পাতার সঠিক যত্ন না নিলে চোখের পাতা উল্টে আরও পাতলা হয়ে যেতে পারে৷ চোখের পাতা যে কতটা সূক্ষ্ম তা বারবার মনে করে দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে না৷ তাই যত ইচ্ছা চোখের পাতায় আইল্যাশ কার্লার, মাস্কারা ব্যবহার করুন তবে এই ঘোরোয়া পদ্ধতিতে চোখের যত্ন নিয়ে৷

১) ক্যাস্টর অয়েল :
চোখের পাতা লম্বা করার জন্য ক্যাস্টর তেল বেশ উপকারী৷ আপনি দু’রকম ভাবে ক্যাস্টর ওয়েলের ব্যবহার করতে পারেন৷
রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে একটি পরিষ্কার ব্রাশ বা তুলোর বল নিয়ে ক্যাস্টর ওয়েলে ডুবিয়ে চোখের পাতায় আলতো করে বোলাতে থাকুন৷ দু-তিন ভিটামিন ই, ক্যাস্টর ওয়েলে মিশিয়ে দিতে পারেন৷ সারা রাত রাখার পর ইষদুষ্ণ জল দিয়ে সকালে চোখটা ভালো করে ধুয়ে নিন৷

অ্যালো ভেরা জেল এবং দু-চামচ ক্যাস্টর ওয়েল একসঙ্গে মিশিয়ে নিন৷ তুলো দিয়ে চোখের ওপর মিশ্রণটি লাগিয়ে নিন৷ সারা রাত রেখে দিয়ে পরের দিন সকালে ধুয়ে নিন৷ এই দুটি পদ্ধতিতে ২-৩ মাস করলেই আপনি ফল পাবেন৷

২) অলিভ ওয়েল :
অলিভ ওয়েল ঘন করার জন্য অলিভ ওয়েলই ব্যবহার করা উচিত৷ পাতার গ্রোথেও সাহায্য করে৷ প্রথমে একটি মাস্কারা স্টিককে ভালো করে পরিষ্কার করে নিন, যাতে একটুও মাস্কারা না লেগে থাকে৷ হালকা গরম অলিভ ওয়েলে মাস্কারা স্টিকটি ডুবিয়ে চোখের পাতায় মাস্কারার মতোই লাগিয়ে নিন৷ মাস্কারা স্টিকের জায়গায় আপনি তুলোও ব্যবহার করতে পারেন৷ এই পদ্ধতিটিও রাতে শুতে যাওয়ার আগে অনুসরণ করুন৷ ইষদুষ্ণ গরম জল নিয়ে সকালবেলা চোখটা ধুয়ে নিন৷ এই ঘরোয়া পদ্ধতিটি কয়েক মাস ব্যবহার করুন যতক্ষণ না মন মতো ফল পাচ্ছেন৷

৩) লেবুর খোসা :
এই পদ্ধতিটি খানিক সময়সাপেক্ষ৷ এক টেবিলচামচ কুঁচোনো শুকনো লেবুর খোসা একটি কৌটোতে রেখে দিন৷ সেই কৌটোতে পরিমাণমতো অলিভ ওয়েল কিংবা ক্যাস্টর ওয়েল ঢেলে রাখুন৷ সপ্তাহ দুয়েক এইভাবেই কৌটোটি বন্ধ করে রেখে দিন, যাতে লেবুর খোসা ভালোভাবে তেল ঢুকে যায়৷ পরিষ্কার মাস্কারা স্টিক নিয়ে চোখে পাতায় লাগাতে থাকুন৷ সারা রাত রেখে সকালে উঠে হালকা গরম জলে চোখ ধুয়ে নিন৷

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *