পরপর দু’বার গ’র্ভপা’ত হয়েছে কাজলের

জনপ্রিয় অ’ভিনেত্রী কাজল। তার অ’ভিনয় ক্যারিয়ারের অন্যতম সফল সিনেমা কাভি খুশি কাভি গম। মুক্তির পর বক্স অফিস সফলতার পাশাপাশি দর্শক-সমালোচকদের প্রশংসা পায় এটি। কিন্তু ব্যক্তিজীবনে সেই সময় মোটেও আনন্দে ছিলেন না কাজল।

সম্প্রতি ফটো শেয়ারিং সাইট ইনস্টাগ্রামে ‘অফিসিয়াল হিউম্যান অব বোম্বে’ নামের একটি জনপ্রিয় অ্যাকাউন্টে এই অ’ভিনেত্রী বলেন, আম’রা সন্তান নেয়ার পরিকল্পনা করি। ২০০১ সালে কাভি খুশি কাভি গম সিনেমা’র সময় আমি অন্তঃসত্ত্বা ছিলাম। কিন্তু আমা’র গর্ভপাত হয়।

হালচাল সিনেমা’র শুটিংয়ে অজয়ের সঙ্গে কাজলের বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। পরবর্তী সময়ে তা প্রে’মের স’ম্পর্কে পরিণত হয়। সেই সময়ের স্মৃ’তিচারণ করে কাজল বলেন, ওই সময় অন্য একজনের সঙ্গে প্রে’ম করতাম। অজয়ও প্রে’মের স’ম্পর্কে ছিল।

আমি প্রায়ই আমা’র বয়ফ্রেন্ডকে নিয়ে তার কাছে অ’ভিযোগ করতাম। পরবর্তী সময়ে পরস্পরের সঙ্গীদের সঙ্গে ব্রেকআপ করি। যদিও আম’রা কেউ কাউকে প্রে’মের প্রস্তাব দেইনি, তবে বুঝে নিয়েছিলাম একসঙ্গে থাকতে চাই। বোঝার অনেক আগেই আমাদের স’ম্পর্ক গড়ে উঠেছিল।

এ বলিউড অ’ভিনেত্রী লিখেন, ‘আম’রা (অজয়ও কাজল) একে অ’পরকে প্রায় ৪ বছর সময় দিয়েছি। এরপর আম’রা বিয়ের সিদ্ধান্ত নিই। ওর বাবা-মা’র এই বিয়েতে কোনো আ’পত্তি ছিল না, তবে আমা’র বাবা চার দিন আমা’র সঙ্গে কথা বলেননি।

আসলে বাবা আমাকে আরও প্রতিষ্ঠিত দেখতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাতেও কোনো লাভ হয়নি। কারণ সেই সময় আমা’র ঠিক করে ফেলেছিলাম যে, আম’রা একে-অ’পরের সঙ্গেই জীবন কা’টাতে চাই।

আমাদের বিয়ের আসর বাড়িতেই বসেছিল, তবে মিডিয়ার লোকদের ভুল ঠিকানা দেওয়া হয়েছিল। কারণ, আম’রা চেয়েছিলাম ওই দিনটা শুধু আমাদের হোক।’

‘কাভি খুশি কাভি গম’র শুটিং-এর সময় তিনি গর্ভবতী ছিলেন। তবে তার সে সন্তান পৃথিবীর আলো দেখতে পারেনি জানিয়ে কাজল মুখার্জি লেখেন, ‘সেই সময় আমি হাসপাতা’লে, সিনেমা তো সফল হয়, কিন্তু আনন্দ করার মতও অবস্থায় ছিলাম না।’

এরপরও আরও একবার তার গর্ভপাত হয় জানিয়ে তিনি লিখেন, ‘কিন্তু শেষপর্যন্ত আমাদের জীবন ভরিয়ে দিয়েছে আমা’র নাইসা ও যুগ। ওরা আমাদের জীবন সম্পূর্ণ করে দিয়েছে।’

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *