Breaking News

নোনা ধরা দেয়ালে কি করবেন দেখুন

ড্যাম্প প্রতিরোধে: দেয়ালের ড্যাম্প পুরোপুরি সারিয়ে তোলা বেশ ব্যয়সাপেক্ষ। দেয়ালের পুরনো প্লাস্টার তুলে ড্যাম্প নিরোধক ক্যামিক্যাল ব্যবহার করে তারপর আবার প্লাস্টার করতে হবে। পুরনো দেয়ালে ছত্রাক জন্মালে রং করার আগে ছত্রাকগুলোকে চেঁছে তুলে ফেলতে হবে। তারপর দেয়ালে অ্যান্টি-ফাঙ্গাশ সলিউশন ব্যবহার করুন। এতে দেয়ালের রং দীর্ঘস্থায়ী হবে। অবশ্যই দেয়ালের বাইরে ও ভেতরে ড্যাম্প নিরোধক রং ব্যবহার করতে হবে। ড্যাম্প দেয়ালে চুন রং ব্যবহার না করাই ভালো। এতে ছত্রাক আরো দ্রুত হয়।

ড্যাম্প হলে: সাময়িক সমাধান চাইলে মাদুর বা শীতল পাটি লাগিয়ে দিতে পারেন দেয়ালে। কাঠের ফ্রেম করে অথবা পেরেক দিয়ে আটকেও দিতে পারেন। চাইলে শীতল পাটিতে রঙিন আলপনাও করা যায় অথবা পাতলা প্লাইউড শিট দিয়ে দেয়ালের ড্যাম্প আড়াল করা যেতে পারে। প্লাইয়ের ওপরে মাটি লেপে দিন। মাটির সঙ্গে আঠা মিশিয়ে নেবেন। মাটি শুকিয়ে গেলে অ্যাক্রিলিক রং দিয়ে এর ওপর আলপনা করুন বা আপনার পছন্দমতো ছবি আঁকুন। শুধু রঙিন হাতের ছাপ দিলেও বৈচিত্র্য আসবে।

দেয়াল ভালো রাখতে ঘরে পর্যাপ্ত ভেন্টিলেশন বা বাতাস চলাচলের সুবিধা থাকা প্রয়োজন।ভেজা পর্দা থেকেও দেয়ালে ড্যাম্প হতে পারে। বর্ষাকালে জানালায় সিনথেটিক ফেব্রিকের পর্দা ব্যবহার করুন। এতে বৃষ্টিতে পর্দা ভিজলেও তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যাবে। মনে রাখবেন, ড্যাম্প দেয়াল থেকে অসুখ ছড়ায়। সপ্তাহে এক দিন ইউক্যালিপটাস বা নিমপাতা মাটির পাত্রে পোড়ান। এতে স্বাস্থ্যের ওপর ড্যাম্পের ক্ষতিকর প্রভাব অনেকটাই এড়ানো যাবে।

দেয়ালের রং: দেয়ালে রঙের ক্ষেত্রে সবাই ভেতরের দেয়ালেই বেশি মনোযোগ দেন। অনেকে প্রতিবছরই ভেতরের দেয়ালের রং বদলান। অথচ বাইরের দেয়ালকে ঝড়-বৃষ্টি মোকাবিলা করতে হয়। তাই বাইরের দেয়ালে ব্যবহার করুন অ্যাক্রেলিক ইমালুশন। দেয়ালের জন্য সাধারণত ডিসটেম্পার ও প্লাস্টিক পেইন্ট—এই দুই ধরনের রং ব্যবহার করা যায়। তবে রং বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান থেকে জেনে নিন আপনার বাড়ির রঙের মেয়াদকাল।

সে অনুযায়ী বাড়ির পুরনো রং তুলে নতুন করে রং করিয়ে নিন। সাধারণত পুরনো বাড়ির ক্ষেত্রে বাইরের দেয়াল তিন বছর পর পর রং করা উচিত। ভেতরের দেয়ালের রং সাধারণত পাঁচ বছর পর্যন্ত উজ্জ্বল থাকে। দেয়ালের রং খুব ভালোভাবে শুকিয়ে গেলে সিলার ব্যবহার করতে পারেন। এতে দেয়াল মসৃণ হবে এবং রং দীর্ঘদিন ভালো থাকবে।

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *