ফাইনালে ওঠা আইয়ারের সেরা অনুভূতি

প্রথম কোয়ালিফাইয়ােরে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কাছে হারলেও দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে হারিয়েছে দিল্লি ক্যাপিটালস। তাতেই প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠেছে শ্রেয়াস আইয়ারের দল। এটাকে সেরা অনুভূতি বলে অভিব্যক্তি করেছেন তিনি।

ফাইনালের আগে অলিখিত এক ফাইনালে হায়দরাবাদের বিপক্ষে খেলতে নেমে ব্যাটসম্যানদের কল্যাণে ৩ উইকেটে ১৮৯ রান তোলে। জয়ের জন্য ১৯০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে কেন উইলিয়ামসন ও আব্দুল সামাদের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ের পরও ১৭২ রানে থামে তারা। তাতে ১৭ রানের জয় নিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে দিল্লি।

ম্যাচ শেষে আইয়ার বলেন, ‘এটি সবচেয়ে সেরা অনুভূতি। এই পথ চলায় উত্থান-পতন ছিল। সবসময়ই আবেগ উঠা-নামা করেছে। তাই আপনি একই ধরণের রুটিনে থাকতে পারেন না। আপনাকে এটি পরিবর্তন করতে হবে।’

দিল্লিকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত দলটির অধিনায়ক। দলের সবাই নিজের জায়গা থেকে চেষ্টা করেছে তাতে খুশি তিনি। এ প্রসঙ্গে আইয়ার বলেন, ‘দিনের শেষে আমরা একটি পরিবার হিসাবে একসঙ্গে আটকে গিয়েছিলাম। প্রত্যেকে যেভাবে চেষ্টা করেছে তাতে খুব খুশি। তবে কোচ এবং সহ-কর্মীদের কাছ থেকে দারুণ সমর্থন পেয়েছি। সত্যিই ভাগ্যবান য়ে এটি দারুণ একটি দল।’

গ্রুপ পর্বে হায়দরাবাদের বিপক্ষে দুই ম্যাচের দুটিতেই হেরেছে দিল্লি। যেখানে দিল্লির ব্যাটিং অর্যারকে একাই ধসিয়ে দিন রশিদ খান। প্রথম ম্যাচে ১৪ রানে ৩ উইকেট নেয়ার পর দ্বিতীয় ম্যাচে ৭ রানে ৩ উইকেট নেন এই লেগস্পিনার।

যে কারণে রবিবারের ম্যাচে তাকে উইকেট না দেয়ার পরিকল্পনা ছিল দিল্লির। তাতে সফলও হয়েছেন শিখর ধাওয়ান-শিমরন হেটমায়াররা। এদিন ২৬ রান দিয়ে মাত্র একটি উইকেট নিয়েছিলেন এই আফগান স্পিনার।

এ প্রসঙ্গে আইয়ার বলেন, ‘আমরা প্রতি ওভারে দশ রান করে নিচ্ছিলাম। তবে আমরা জানি রশিদ মাঝখানে আমাদের জন্য মারাত্মক হতে পারে। তাই তাকে উইকেট না দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল।’

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *