ফ্লুর যে ৬ লক্ষণ অবহেলা করবেন না

আপনি নিঃসন্দেহে অসুস্থতা অনুভব করেন। আপনি গিলতে ব্যথা পেতে পারেন কিংবা আপনার মাথাব্যথা হতে পারে- কিন্তু এটি কি ঠান্ডা, অ্যালার্জি অথবা ভয়ানক ফ্লু? আপনার ডাক্তার কর্তৃক র‍্যাপিড ফ্লু টেস্ট ছাড়া এদের মধ্যে পার্থক্য নিরূপণ করা কঠিন।

এ প্রতিবেদনে কিছু প্রশ্ন দেওয়া হলো যা আপনি নিজেকে জিজ্ঞেস করে শণাক্ত করার চেষ্টা করতে পারেন এটি ফ্লু কিনা।

১. আপনার উপসর্গ কতটা তীব্র?

কাইজার পারমানেন্তে সান দিয়েগোর ইমার্জেন্সি মেডিসিন অ্যাটেন্ডিং ক্লিফোর্ড সোয়াপ বলেন, ‘কমন ঠান্ডা এবং ইনফ্লুয়েঞ্জা উভয়ে আপার রেসপিরেটরি উপসর্গ (যেমন- সাইনাস কনজেশন, রানি নোজ, গলা ব্যথা ও কাশি) এবং সিস্টেমিক উপসর্গ (যেমন- জ্বর) অন্তর্ভুক্ত করতে পারে।’ ফ্লুর লক্ষণ দ্রুত দেখা দিতে পারে এবং কমন ঠান্ডার চেয়ে বেশি তীব্র হতে পারে।

২. আপনি কি ব্যথা অনুভব করেন?

আপনার ঠান্ডা লাগলে হালকা ব্যথা অনুভব করতে পারেন, কিন্তু ফ্লু হলে ব্যথার এ মাত্রা থাকবে না- তখন ব্যথা বেশি হবে। যদি আপনার ফ্লু হয়, আপনার মাংসপেশী ও অস্থিসন্ধি ব্যথা করবে, প্রায়ক্ষেত্রে আপনার মাথা, পিঠ ও পায়ে ব্যথা করবে। এমনকি চলাফেরা করাও বেদনাদায়ক হতে পারে।

৩. আপনি কি জ্বরাক্রান্ত?

আপনার ঠান্ডা লাগলে থার্মোমিটার ৯৯ বা তার উপরে আরোহণ করবে, ঠান্ডার ক্ষেত্রে উচ্চ জ্বর হওয়ার সম্ভাবনা বলতে গেলে বিরল। ফ্লুর একটি লক্ষণ হচ্ছে (সবসময় নয়) ১০০ থেকে ১০২ রেঞ্জে জ্বর আসা (এর চেয়েও বেশি হতে পারে)। জ্বর কয়েকদিন থাকলে বিস্মিত হবেন না, এমনকি মারাত্মক হলেও- মনে রাখবেন যে জ্বর হচ্ছে ইনফেকশনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য শরীরের একটি উপায়।

৪. আপনার শরীর কি ঠান্ডা হয় বা ঘামে?

আপনার ঠান্ডা লাগলে বিরল ক্ষেত্রে আপনার শরীর ঠান্ডা হতে পারে অথবা ঘামতে পারে। কিন্তু এসব হচ্ছে ফ্লুর কমন উপসর্গ। কখনো কখনো শরীর ব্যথার কারণে শরীর ঠান্ডা হতে পারে, আবার কখনো কখনো জ্বরের কারণে শরীর ঠান্ডা হতে পারে- এমনকি জ্বর ছাড়াও ফ্লু শরীর ঠান্ডা করতে পারে।

৫. আপনি কি দুর্বলতা ও ক্লান্তি অনুভব করেন?

কখনো কখনো ঠান্ডা আপনাকে ক্লান্ত করতে পারে, অথবা আপনাকে সচরাচরের তুলনায় বেশি দুর্বল করতে পারে। ঠান্ডার ক্ষেত্রে এ উপসর্গ শুধুমাত্র কয়েকদিন থাকে, কিন্তু ফ্লুর ক্ষেত্রে তা কয়েক সপ্তাহ থাকতে পারে। ফ্লু হলে অত্যধিক অবসাদগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা ঠান্ডার চেয়ে বেশি- উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, দিনের অধিকাংশ সময় ঘুমিয়ে থাকা।

৬. আপনার পেটের কি অবস্থা?

সকল প্রজাতির ভাইরাস আপনাকে বমি, ডায়রিয়া অথবা পাকস্থলীর খিঁচুনির মতো পাকস্থলী বা পেটের সমস্যায় না ফেললেও এসব ফ্লুর লক্ষণ হতে পারে। যদি আপনাকে টয়লেটের দিকে দৌঁড়াতে হয়, তাহলে এটি ঠান্ডার লক্ষণ না হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল, কিন্তু ফ্লুর লক্ষণ।

  • ফ্লু হলে যা করবেন

যদি আপনি মনে করেন যে আপনার ফ্লু হয়েছে, তাহলে পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে? ফ্লুর উপসর্গ চলে না যাওয়া পর্যন্ত নির্জনে থাকবেন নাকি জরুরি ভিত্তিতে ডাক্তারের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নেবেন? ডা. সোয়াপ বলেন, ‘আপনি উচ্চ ঝুঁকির দলের অন্তর্ভুক্ত না হলে এবং আপনার উপসর্গ হালকা হলে, আপনার ডাক্তারের কাছে যাওয়া কিংবা অ্যান্টি-ভাইরাল ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করার প্রয়োজন নেই।’ শিশু, ৬৫ বছর বা তদোর্ধ্ব লোকজন ও বৃদ্ধ, গর্ভবতী মহিলা এবং অন্যান্য মেডিক্যাল সমস্যায় ভোগা লোকেরা উচ্চ ঝুঁকির দলের অন্তর্ভুক্ত। এসব লোকদের মধ্যে ফ্লু-সম্পর্কিত সমস্যা, যেমন- নিউমোনিয়া হওয়ার বর্ধিত ঝুঁকি থাকে। ডা. সোয়াপ বলেন, ‘আপনার তীব্র উপসর্গ থাকলে অথবা উচ্চ ঝুঁকি থাকলে অ্যান্টি-ভাইরাল (যেমন- ট্যামিফ্লু বা রেলেনজা) ওষুধ দিয়ে চিকিৎসার কথা বিবেচনা করা উচিত, কিছু গবেষণা নির্দেশ করছে যে এসব ওষুধ উপসর্গের স্থায়িত্ব বা তীব্রতা কমাতে পারে।’

আপনার একজন ডাক্তারকে দেখানো উচিত হবে, যদি আপনার মধ্যে সতর্কীকরণ লক্ষণ বিকশিত হয়। যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (সিডিসি) মতে এসব লক্ষণ হচ্ছে, শ্বাসকষ্ট, বুকে বা পেটে ব্যথা বা চাপ, হঠাৎ মাথা ঘোরা, অলসতা, তীব্র বমি অথবা ফ্লুর পুনরাবৃত্তিমূলক লক্ষণসমূহ। শিশুরা পর্যাপ্ত তরল পান না করলে, ডিহাইড্রেটেড থাকলে অথবা অবসন্ন বা উদাসীন হলে তাদেরকে ডাক্তার দেখানো উচিত।

ফ্লু হলে যা করবেন না

যদি আপনি ধারণা করেন যে আপনার ফ্লু হয়েছে, তাহলে অন্যদের সঙ্গে মেলামেশা থেকে বিরত থাকুন। সহকর্মী ও অন্যদের মধ্যে যেন এ রোগ ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্য কর্মস্থল থেকে ছুটি নিন। বাইরে অবশ্যই যেতে হলে (যেমন- ডাক্তার দেখানো) ফেস মাস্ক ব্যবহার করুন।

ডা. সোয়াপ বলেন, ‘ইনফ্লুয়েঞ্জা খুব ছোঁয়াচে এবং প্রায়ক্ষেত্রে দুর্বলকারক ও এমনকি প্রাণঘাতী। আপনি যখন এটি নিয়ে ভীত হবেন, আপনার মনে এটি অন্যদের মাঝে ছড়ানো প্রতিরোধ করার বিষয়টি প্রধান বিষয় হিসেবে স্থান পাবে না, কিন্তু স্থান পাওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *