Breaking News

কোলাহলমুক্ত থাকতে শেষ ছয় বছর পাহাড়েই ছিলেন আসিফ

পদার্থবিদ্যায় স্নাতক শেষ করলেও ইচ্ছে ছিল অভিনয় করবেন। সেই ইচ্ছেতে চাকরি ছেড়ে দিয়ে ছুটে চলেন অভিনয়ের পেছনে। মহারাষ্ট্রের অমরাবতীর সাধারণ পরিবারে জন্ম। সেখানে কারও কোনোদিন যোগাযোগ নেই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে। অথচ সেই পরিবারেরই ছেলে আসিফের ইচ্ছে অভিনেতা হওয়ার! স্কুলের দিনগুলো থেকেই তাঁর স্বপ্ন, এক দিন অভিনেতা হবেন।

আসিফ বসরার জন্ম ১৯৬৭ সালের ২৭ জুলাই। অমরাবতীতে স্কুলজীবন কাটিয়ে চলে এলেন সাবেক বম্বে, আজকের মুম্বইয়ে। পড়াশোনার ইচ্ছেকে ছাপিয়ে গিয়েছিল অভিনেতা হওয়ার লক্ষ্য। মঞ্চাভিনেতা আসিফকে ছোটপর্দায় প্রথম দেখা গিয়েছিল ১৯৯৮ সালে। অভিনয় করেছিলেন ‘ওহ’ ছবিতে। তার ৫ বছর পরে প্রথম অভিনয় বড় পর্দায়। আসিফকে দেখা গিয়েছিল ‘রুলস: প্যায়ার কা সুপারহিট ফর্মুলা’-য়।

১৯৯১ সালে প্রখ্যাত নাট্যব্যক্তিত্ব সেলিম গোসের সংস্থার নাটক ‘বোসম্যান অ্যান্ড লেনা’ দেখেন আসিফ। এতটাই মুগ্ধ হয়ে যান, এক সপ্তাহ ধরে প্রতি রাতে তিনি এই নাটকটা দেখতেন। মুম্বাইয়ের থিয়েটার জগতে পা রাখেন আসিফ। পরবর্তীতে সেলিমের পরিচালনায় শেক্সপিয়রের ‘হ্যামলেট’ নাটকে হোরেশিয়োর ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন তিনি।

চাকরির পাশাপাশি থিয়েটার দুনিয়াতেও নিয়মিত মুখ হয়ে ওঠেন তিনি। হিন্দি, ইংরেজি এবং উর্দু— ৩ ভাষার নাটকেই তিনি ছিলেন অন্যতম কুশীলব। ‘মহাত্মা ভার্সেস গাঁধী’ এবং ‘ম্যায়ঁ ভি সুপারস্টার’ নাটকে তাঁর অভিনয় প্রশংসিত হয় দর্শক মহলে।

পুরো সময়টাই থিয়েটারকে দেবেন বলে ১৯৯৬ সালে চাকরি ছেড়ে দেন আসিফ। মঞ্চে অভিনয় করার পাশাপাশি তিনি পৃথ্বী থিয়েটারে তরুণদের প্রশিক্ষণও দিতেন। অথচ তাঁর নিজের কোনও প্রথাগত অভিনয়-প্রশিক্ষণ ছিল না। প্রশিক্ষণ ছাড়াই বহিরাগত হিসেবে এসে বলিউডে জায়গা করে নিয়েছিলেন প্রতিভার জোরে।

বলিউডের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মহলেও আত্মপ্রকাশ করেন আসিফ। অভিনয় করেন ব্রিটিশ-ফরাসি-জার্মান উদ্যোগে নির্মিত ছবি ‘কুইকস্যান্ড’-এ।

এর পর বলিউড এবং আন্তর্জাতিক মহলে একইসঙ্গে সমানতালে অভিনয় করে যান আসিফ। বলিউডে বাণিজ্যিক ছবির মূলস্রোত এবং সমান্তরাল ধারা, দুই দিকেই আসিফ হয়ে ওঠেন নির্ভরযোগ্য নাম। ‘ব্ল্যাক ফ্রাইডে’, ‘পরজানিয়া’, ‘ওয়ন্স আপন এ টাইম ইন মুম্বই’ ছবিতে বলিষ্ঠ অভিনয়ে আসিফ চিরস্থায়ী জায়গা করে নিয়েছেন দর্শকদের মনে।

মৃত্যুর আগে গত ৬ বছর ধরে নাগরিক কোলাহল থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছিলেন আসিফ। হিমাচল প্রদেশের আপার ধর্মশালায় ম্যাকলিয়ডগঞ্জে একটি বাড়ি লিজ নিয়েছিলেন। বেশির ভাগ সময় থাকতেন সেখানেই। ১২ নভেম্বর, বৃহস্পতিবারও তাকে প্রতিবেশীরা দেখেছেন পোষা কুকুরকে নিয়ে হাঁটতে। এ দিনই কিছু সময় পরে জানা যায় অভিনেতার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়েছে তার ঘরে।

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *