শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে কবে, আজকালের মধ্যেই ঘোষণা

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে আগামী ১৪ নভেম্বরের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সীমিত পরিসরে খুলে দেওয়া যায় কিনা, তা ভাবছে সরকার। তবে কবে থেকে খোলা হবে, সে বিষয়ে আজকালের মধ্যেই ঘোষণা দেওয়া হবে।

বুধবার অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমের ওপর একটি জরিপের ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এ কথা জানান।

এতে বক্তব্য দেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ গোলাম ফারুক, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী প্রমুখ।

ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত ছুটি শেষে ১৫ তারিখ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে কিনা, নাকি ছুটি আরও বাড়বে, নাকি কোনো কোনো ক্লাস সীমিত আকারে শুরু করা যাবে- সেসব নিয়ে কাজ চলছে। তবে তা ১৪ নভেম্বরের আগেই জানিয়ে দেওয়া হবে। আজকালের মধ্যে একটা সিদ্ধান্ত জানাতেই হবে।

দীপু মনি বলেন, করোনা কত দিনে যাবে, কত দিনে সত্যিকার অর্থে প্রতিষ্ঠান পুরোপুরি খুলে দেওয়া যাবে, সে বিষয়গুলো এখনও অনিশ্চিত। এরই মধ্যে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা আসছে। সেগুলো নিয়েও বিভিন্নভাবে ভাবা হচ্ছে। পরীক্ষার আগে সিলেবাস কী করে পুরোপুরি শেষ করা যায়, তা নিয়েও চিন্তাভাবনা চলছে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, মাধ্যমিকে ৪২ শতাংশ এবং উচ্চ মাধ্যমিকে ৫৮ শতাংশ শিক্ষার্থী অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রমে নিয়মিত অংশ নিচ্ছে। আর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক মিলে নিয়মিত অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছে ৬৩ শতাংশ। ভিডিও মাধ্যমে শিক্ষা নিয়েছে ৬১ শতাংশ। ফেসবুক মেসেঞ্জারের মাধ্যমে শিক্ষা নিচ্ছে ৩৫ শতাংশ। অন্য মাধ্যমে (ই-মেইল, হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবার ইত্যাদি গ্রুপে) শিক্ষা নিচ্ছে ২১ শতাংশ শিক্ষার্থী।

জরিপের তথ্য অনুযায়ী, ইন্টারনেট ব্যয় ৫০১ টাকা থেকে এক হাজার টাকা পর্যন্ত বেড়েছে ৫৪ শতাংশ শিক্ষার্থীর। আর ইন্টারনেট ব্যয় ৭০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে ১০ শতাংশ শিক্ষার্থীর।

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *