মাছের ডিমে আদৌ কি পুষ্টি রয়েছে? জানালেন বিশেষজ্ঞরা

বাঙ্গালী মানে মাছ। বলাই হয়, মাছ অন্তপ্রাণ বাঙালির। মাছ ছাড়া তাঁদের জীবন চলে না। মাছ না থাকলে যেন খাবারের প্রতি মনই বসতে চায় না বাঙালির। এখন বর্তমানে মাছ খেলে কি কি স্বাস্থ্য উপকারিতা পাওয়া যেতে পারে সেই নিয়ে আমরা সবাই ওয়াকিবহাল। কিন্তু মাছের পাশাপাশি মন মজেছে মাছের ডিমে।

এখন কমবেশি অনেকেই মাছের ডিম খান ও ভালোবাসেন। মাছের বিষয়ে অনেকেই অনেক কিছু জানলেও মাছের ডিম খেলে কি কি স্বাস্থ্য উপকারিতা পাওয়া যেতে পারে, সেই নিয়ে অনেকেরই ধারনা নেই।

এই প্রসঙ্গে গবেষক থেকে শুরু করে বিশেষজ্ঞরা পর্যন্ত জানিয়েছে, মাছের ডিমে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা ফিশ অয়েল সাপ্লিমেন্ট হিসেবে আমাদের শরীরে কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

চিকিৎসকদের মতে, মাছের ডিমে এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যা শরীরের বহু সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। আসুন এক নজরে দেখে নেওয়া যাক মাছের ডিম খাওয়ার পিছনে কি কি স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে।

হাড় শক্ত করতে- মাছের ডিমের মধ্যে থাকে ভিটামিন-ডি, যা হাড় শক্ত করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি দাঁতকে মজবুত ও ভালো রাখতে সাহায্য করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে- মাছের পাশাপাশি মাছের ডিমে থাকা প্রয়োজনীয় উপাদান শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

চোখ ভালো রাখতে- মাছের ডিমের মধ্যে থাকা ভিটামিন-এ চোখ ভালো রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়া ডিএইচএ ও ইপিএ শিশুদের চোখের জ্যোতি বৃদ্ধি করতে এবং রেটিনার কার্যকারিতাকে উন্নত করতে গুরুত্বপূর্ণ।

মস্তিস্ক উন্নতি করতে- মাছের ডিমে থাকা EPA, DHA ও DPA (এক ধরনের ফ্যাটি অ্যাসিড) মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য উন্নতি করতে সহায়তা করে।

অ্যানিমিয়া থেকে রেহাই পেতে- মাছের ডিমে থাকা স্বাস্থ্যকর উপাদানগুলো রক্ত পরিষ্কার করে এবং হিমোগ্লোবিন বাড়িয়ে তোলে, যা অ্যানিমিয়া থেকে মুক্তি পেতে খুবই সহায়ক।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে- মাছের ডিমের ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড দেহের ভেতরে রক্ত জমাট বাঁধতে না দেওয়া এবং প্রদাহ হ্রাস করতে সহায়তা করে, যা উচ্চ রক্তচাপের হাত থেকে দেহকে রক্ষা করে।

আর্থ্রাইটিস থেকে রেহাই পেতে- গবেষকদের মতে, মাছ ও মাছের ডিমে থাকা ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড রিউম্যাটয়েড আর্থ্রাইটিস (Rheumatoid Arthritis)-এর লক্ষণগুলো হ্রাস করতে সহায়তা করে।

হার্টের অসুখ রোধ করতে- মাছের ডিমে থাকা ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন-ডি হার্টের অসুখ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *