কোহলি ঘুম থেকে উঠে সিদ্ধান্ত নেবেন খেলবেন কি না

প্রথম সন্তানের জন্মের সময়ে স্ত্রী আনুশকা শর্মার পাশে থাকতে চান বিরাট কোহলি। এ কারণেই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে মাত্র একটি ম্যাচই খেলতে পারবেন ভারতের অধিনায়ক। অ্যাডিলেডে ১৭ ডিসেম্বর সেই দিবা–রাত্রির টেস্টের আগে তিন দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ আছে ভারতের। সেই ম্যাচে কি খেলবেন কোহলি?

১২ দিনের মধ্যে ছয়টি সীমিত ওভারের ম্যাচ খেলে একটু হয়তো ক্লান্ত ভারতের বেশির ভাগ ক্রিকেটার। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হারার পর তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ২-১ ব্যবধানে জয় পেয়েছে ভারত। ছয়টি ম্যাচেই খেলেছেন ভারতের অধিনায়ক কোহলি। এ কারণেই তাঁকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে কি খেলবেন তিনি?

কোহলির কথা, শতভাগ ফিট না থাকলে এই ম্যাচে তিনি খেলতে চান না। ম্যাচ খেলবেন আর শুধু স্লিপে দাঁড়িয়ে ফিল্ডিং করবেন, এমনটা চান না ভারত অধিনায়ক। সবশেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ শেষে এমন এক প্রশ্নের উত্তরে কোহলি বলেছেন, পরের দিন ঘুম থেকে উঠে শারীরিক অবস্থা দেখে তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন।

কোহলির কথা, ‘দেখি আগামীকাল ঘুম থেকে উঠে কেমন বোধ করি। এটা আপনারা বুঝতেই পারছেন যে আধা ফিট অবস্থায় আমি খেলতে পারি না। আমি এ রকমই। আমি শুধু স্লিপে ফিল্ডিংয়ে দাঁড়িয়ে থেকে ম্যাচটি খেলব, এটা চাই না। আগামীকাল ঘুম থেকে উঠে দেখি কী অবস্থা হয়।’

কোহলি এরপর বলেছেন, ‘ঘুম থেকে উঠে যদি ভালো লাগে, অবশ্যই আমি ম্যাচটি খেলব। আর যদি ভালো না লাগে, তাহলে ফিজিও আর ট্রেনারকে বলব যে প্রথম টেস্টের আগে নিজেকে সতেজ করে নিতে কয়েকটা দিন সময় দরকার আমার।’

দিবা–রাত্রির টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা ভারতের খুব বেশি খেলোয়াড়ের নেই। যাঁদের এ অভিজ্ঞতা আছে, তা–ও খুব বেশি নয়। এর আগে ভারত একটি মাত্র দিবা–রাত্রির টেস্ট খেলেছে। সেটি বাংলাদেশের বিপক্ষে। অন্যদিকে ভারতের অধিনায়ক কোহলির প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার বিষয়ে অনীহা আছে। এর চেয়ে বরং কোনো ম্যাচের আগে নেটে ব্যাটিং করতেই বেশি পছন্দ করেন তিনি।

প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে নিজেদের ঝালিয়ে নেওয়ার চেয়ে কোহলি শারীরিকভাবে সতেজ থাকার দিকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন, ‌‘সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, আপনাকে শারীরিকভাবে সতেজ থাকতে হবে। কারও বিন্দুমাত্র পেশিগত সমস্যাও থাকতে পারবে না। দলের মূল খেলোয়াড়দের শারীরিকভাবে ঠিক রাখার দিকেই বেশি নজর দিচ্ছি আমরা।’ এরপর কোহলি বলেন, ‘টেস্ট সিরিজটা ভালোভাবে শুরু করতে আমাদের ১১ জন মূল খেলোয়াড়কে ফিট রাখতে হবে।’

এ কারণেই হয়তো দিবা–রাত্রির তিন দিনের প্রস্তুতিমূলক ম্যাচের জন্য ভারত তাদের সেরা ফাস্ট বোলারদের বিশ্রাম দিতে চায়। কোহলি বলেছেন, ‘আপনি টেস্ট ম্যাচে আপনার মূল খেলোয়াড়দের এভাবে নিয়ে যেতে পারেন না যে তারা পায়ে ব্যথা অনুভব করছে বা তারা নিজেদের ক্লান্ত মনে করছে। এ কারণে বোলারদের সঙ্গে আমাদের সব সময় কথা বলতে হবে। জানতে হবে তারা শারীরিকভাবে ঠিক আছে কি না।’ অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের বিপক্ষে ভারতের তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচটি শুরু হবে কাল সকালে।

About Mukshedul Hasan Obak

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *